১৮ কিলোমিটার পায়ে হেটে পড়াতে যান শিক্ষক, চাঁদা তুলে ঘোড়া কিনে দিলেন গ্রামবাসী

বলা হয়, মা-বাবার চেয়েও উপরের আসন শিক্ষক বা গুরুর। মা-বাবা জন্ম দিলেও শিক্ষক জ্ঞানের আলো দেন। তাই গুরুর স্থান সবচেয়ে উপরে। তেমনই এক শিক্ষক তিনি। ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষার আলো পৌঁছে দিতে প্রত্যন্ত গ্রামে প্রতিদিন ১৮ কিলোমিটার ঘোড়া চালিয়ে পড়াতে যান গাম্বারাই ভেঙ্কট রমন।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজ১৮ এক প্রতিবেদনে জানায়, ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের প্রত্যন্ত গ্রাম সুরাপেলামের প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক গাম্বারাই। প্রতিদিন তিনি ১৮ কিলোমিটার ঘোড়ায় চেপে পড়াতে যান। কারণ রাস্তার অবস্থা শোচনীয়। আর পরিবহনও উন্নত নয়।

কেন ঘোড়া? মোটরবাইক বা বাস নয় কেন? তাঁকে অ্যাডভেঞ্চার প্রিয় ভাবলে ভুল হবে। ওই গ্রামে পৌঁচাতে পাহাড়ি পথ পেরোতে হয়। যা মোটরবাইকে সম্ভব নয়। ওই এলাকার রাস্তা এতটাই খারাপ যে হেঁটে যাওয়াও মুশকিল। কিন্তু গাম্বারাই তো নিজের চেয়েও বেশি ভালোবাসেন তাঁর ছাত্রছাত্রীদের। তাই রাস্তার তোয়াক্কা না করে ছুটে চলেন ঘোরায় চড়ে।

খবরে বলা হয়, ভেঙ্কটরমন স্যার আমাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ গড়ার জন্যই এত কষ্ট করছেন। গ্রামবাসী চাঁদা তুলে ৯ হাজার টাকা জমিয়ে ঘোড়াটি কিনে দিয়েছেন তাকে। গাম্বারাই স্কুল থেকে কোনো বেতন নেন না। তাই প্রিয় শিক্ষককে গ্রামের সবাই চাঁদা তুলে ঘোড়াটি উপহার দিয়েছেন। গ্রামের মানুষের একটাই ইচ্ছে, তাঁদের সন্তানরা যেন লেখাপড়া শেখার সুযোগ পায়।

Check Also

ভারতে কোভিড হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ড: নিহত ৫

ঢাকাঃ ভারতে একটি কোভিড হাসপাতালে আগুন লেগে ৫ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ হয়েছেন আরও অনেকেই। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *