ব্লকচেইন প্রযুক্তি কি? (What Is Blockchain technology in Bengali)

ব্লকচেইন প্রযুক্তি কি? (What Is Blockchain technology in Bengali) ব্লকচেইন প্রযুক্তি হল সেই প্রযুক্তি যার মাধ্যমে বিটকয়েন এবং অন্যান্য cryptocurrency কাজ করে এটি একটি ডিজিটাল পাবলিক লেজার (রেকর্ড বুক) যাতে প্রতিটি লেনদেনকে ছোট ছোট ব্লকের আকারে একটির পর আরেকটি সংযুক্ত করে চেইন এর আকারে রেকর্ড করা হয়।

সেই জন্য এটিকে ব্লকচেইন প্রযুক্তি (Blockchain technology) বলা হয় এতে অংশগ্রহণকারীরা কোনো থার্ড পার্টি বা সেন্ট্রাল অথরিটি ছাড়াই নিশ্চিত এবং সুরক্ষিত ভাবে লেনদেন করতে পারে।

কে বা কারা ব্লকচেইন টেকনোলজি আবিষ্কার করেন ?

বিজ্ঞানী W. Scott Stornetta এবং কম্পিউটার সায়েন্টিস্ট, ক্রিপ্টোগ্রাফা, Stuart Haber ব্লকচেইন প্রযুক্তি আবিষ্কার করেন ১৯৯১ সালে “How to Stamp a Digital Document “ (‘হাউ তো টাইম স্ট্যাম্প এ ডিজিটাল ডকুমেন্ট )।

“ নামক প্রবন্ধে ব্লকচেইনপ্রযুক্তি সম্পর্কে তারা বিস্তারিত আলোচনা করেন। সাতোশি নাকামোতো ( Satoshi Nakamoto ) নামক জাপানীস ব্যক্তি Blockchain technology ব্যবহার করে Bitcoin আবিষ্কার করেছিলেন .

ব্লকচেইন প্রযুক্তি কিভাবে কাজ করেঃ ব্লকচেইন এর প্রতিটি ব্লক এর মধ্যে কয়েকটি তথ্য জমা থাকে। একটি ব্লক এর মধ্যে প্রথমে যেই তথ্যটি জমা করা হয় সেটি হলো সেই ব্লকের প্রয়োজনীয় তথ্য যেমন বিটকয়েন ক্ষেত্রে এর ব্লক এর মধ্যে জমা করা হয় কয়েন এর ট্রানজাকসশন এর তথ্য।

তারপর যেই তথ্যটি জমা হয় সেটি হলো ওই ব্লক এর জন্য তৈরি হওয়া একটি ইউনিক হ্যাস কোড এবং তারপর জমা হয় ওই ব্লক এর পূর্ববর্তী ব্লক এর হ্যাস কোড। তো এইভাবে একটি ব্লক এর হ্যাস তার পরবর্তী ব্লক এর মধ্যে জমা করা হয় এবং তার পরবর্তী ব্লক এর হ্যাস জমা করা হয় তার পরবর্তী ব্লক এর মধ্যে।

এই ভাবে প্রতিটি ব্লক এর হ্যাস তার পরবর্তী ব্লকের মধ্যে জমা থাকে। এবং এভাবে একটি চেইন তৈরি করা হয়। আর যেই ব্লক সবথেকে প্রথমে তৈরি করা হয় এবং যেই ব্লকের মধ্যে অন্য কোনো ব্লকের হ্যাস জমা হয় তাকে বলা হয় জেনেসিস ব্লক।

আর এই কারনেই আমরা চাইলেই যেকোনো সময় যেকোনো ব্লকের হিস্ট্রি দেখতে পারি। কোন ব্লকে কি হচ্ছে তা দেখতে পারি। যার কারনে সব ব্লক অনেক বেশি নিরাপদ থাকে এবং কেউ চাইলেই কোনো ব্লকের তথ্য পরিবর্তন করতে পারে না। কারন একটি ব্লকের তথ্য যদি পরিবর্তন করে তাহলে সেই ব্লকের হ্যাস পরিবর্তন হয়ে যাবে।

সেই ব্লক এর হ্যাস এর সাথে যেহেতু তার পরবর্তী ব্লক এর হ্যাস এর সাথে যুক্ত। তাই সেই ব্লকের পরবর্তী ব্লকের হ্যাস ও পরিবর্তন হয়ে যাবে। এবং এইভাবে সেই ব্লকের এর পরের সবগুলো ব্লকের তথ্য নষ্ট হয়ে যাবে। তাই কোনো ব্লকের তথ্য চাইলেই কেউ পরিবর্তন করতে পারবে না .

ব্লকচেইন কত রকমের ও কি কি ?

ব্লকচেইন দুই রকমের হয়

১. পাবলিক ব্লকচেইন ( Public Blockchain)

২. প্রাইভেট ব্লকচেইন ( private blockchain)

১. প্রাইভেট ব্লকচেইনঃ প্রাইভেট ব্লকচেইন centralazied network যে গুলি একটি গ্রুপ তৈরী করে এবং সঞ্চালিত করে .এই গ্রুপের বিভিন্ন নোড গুলি কে নিৰ্দিষ্ট নিয়ম ও সীমাবদ্দ থাকে প্রাইভেট ব্লকচেইন নতুন নোড যোগ করার জন্য existing নোড গুলির permission নিতে হয়।

প্রাইভেট ব্লকচেইন গুলি নিরাপদ নয় যেমন Ripple , Hyper Ledger.

২.পাবলিক ব্লকচেইন ( public Blockchain) : পাবলিক ব্লকচেইন গুলি open network source যে কেও এতে জয়েন করতে পারে এবং তথ্য গুলি দেখতে পারে .এতে এক বার লেনদেন কমপ্লিট হলে সে গুলি ডিলিট বা চেঞ্জ বা অল্টার করা যায় না পাবলিক ব্লকচেইন গুলি নিরাপদ উদাহরণস্বরুপ Bitcoin (BTC), Etherem( ETC).

ব্লকচেইন টেকনোলজি সঙ্গে জড়িত গুরুত্বপূর্ণ টেকনোলজি গুলি কি কি ?

ব্লকচেইন টেকনোলজি সঙ্গে জড়িত গুরুত্বপূর্ণ টেকনোলজি গুলি হলঃ

১. Privet key Cryptography.

২ . P2P ( Peer to Peer) নেটওয়ার্ক।

৩. প্রোগ্রাম ( ব্লকচেইন প্রোটোকল)।

যে গুলি ছাড়া ব্লকচেইন অসম্পূর্ণ।

Check Also

মোবাইলে ডাটা এন্ট্রি করে আয়

মোবাইলে ডাটা এন্ট্রি করে আয় মোবাইলে ডাটা এন্ট্রি করে কীভাবে আয় করবেন? আপনি কি মোবাইলে …