ব্রাহ্মণ-হরিজন বিয়ে: স্বামীর ১৪ বছরের সাজা দিল আদালত

ব্রাক্ষ্মণ ও হরিজন জাত বিদ্বেষের কারণে শ্বশুড়ের করার মামলায় সাজা হওয়া হরিজন মেয়ের জামাই তুষারকে জামিন দিয়েছেন আদালত।

বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে সুমনের স্ত্রী স্মুমিতার করা জামিন আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট) সকালে এই জামিন দেন।

আদালত বলেন, আইনের চেয়ে জাত-পাত বড় হতে পারে না। একইসাথে তুষারকে সাজা দেয়া শরিয়তপুরের আদালতের ওই বিচারকের ভৎসর্না করেন হাইকোর্ট।

শুধু মাত্র হরিজন সম্প্রদায় হওয়ার কারনে একটি বিয়ে মেনে নেয়নি ব্রাহ্মণ এক পরিবার। উল্টো শ্বশুড়ের করা স্ত্রীকে অপহরণের মামলায় জেল খাটছেন এক স্বামী। সনাতন হিন্দু ধর্মের হরিজন সম্প্রদায়েরে তুষার বিয়ে করেন ব্রাহ্মণ মেয়ে সুস্মিতা দেবনাথকে। তিন মাসের কোলে নিয়ে স্বামীর মুক্তির জন্য ঘুরছেন উচ্চ আদালত।

পরিবারের অমতে বিয়ে করায় ছেলের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও অপহরণের মামলা করে ২০১৭ সালে। আদালত থেকে জামিন নিয়ে সুখেই কাটছিলো সুস্মিতা আর তুষারের সংসার। ফুটফুটে মেয়েটা তাতে যোগ করে বাড়তি আনন্দ। কিন্তু মন গলেনি মেয়ের পরিবারের। ধর্ষণের মামলায় খালাস পেলেও অপহরণের মামলায় ১৪ বছর কারাদণ্ড হয় তুষারের। সুস্মিতা নিজের ইচ্ছেয় বিয়ের কথা জানালেও আমলে নেননি আদালত।

আইনজীবী জানান, স্ব ইচ্ছায় বিয়ের কথা আমলে না নিয়ে অপহরণের মামলায় ১৪ বছরের সাজা দেয়া আইনবহির্ভূত হয়েছে।

Check Also

ভারতে কোভিড হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ড: নিহত ৫

ঢাকাঃ ভারতে একটি কোভিড হাসপাতালে আগুন লেগে ৫ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ হয়েছেন আরও অনেকেই। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *